সোমবার, ১৩ Jul ২০২০, ০২:২৫ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
শিরোনাম :
করোনায় আক্রান্ত ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট কওমী মাদরাসা খুলতে আলেমদের সাহসী ভূমিকা রাখতে হবে: নদভী পাকিস্তানের স্বাস্থ্যমন্ত্রী করোনায় আক্রান্ত করোনায় মুসলমান নাগরিকদের সঙ্গে নিষ্ঠুর আচরণ করছে শ্রীলঙ্কা সরকার প্রবাসীদের জন্য বিনামূল্যে ইকামার মেয়াদ তিনমাস বাড়ানোর নির্দেশ দিয়েছেন সৌদি সৌহার্দ্য বজায় : ঈদ হোক মোক্ষম করোনা ভাইরাস থেকে আমরা আসলে যে শিক্ষা নিতে পারি -বিল গেটস প্রাকৃতিক দুর্যোগে রাসূল সাঃ যে আমল করতেন এবং তাগিত দিতেন ইতিকাফ রব্বে কারীমের সঙ্গে আলাপনের মহান সুযোগ শবে কদর; সাতাশের রাতই কি সেই দিন? ১২মে দেখা যাবে সুরাইয়া তারকা: মিলবে কী করোনা থেকে মুক্তি? আলেম লেখকদের পাশে দাঁড়াচ্ছে বাংলাদেশ ইসলামী লেখক ফোরাম আল্লামা আহমদ শফী ও শীর্ষস্থানীয় আলেমদের ধন্যবাদ সারাদেশের মসজিদ উন্মুক্ত করে দেয়ার জন্য যে সকল শর্তসাপেক্ষে খুলে দেয়া হলো দেশের সকল মসজিদ মসজিদে নামাজ আদায় করা যাবে আগামীকাল জোহর থেকে
বঙ্গবন্ধুর বকশিস দেওয়া ১০০টাকা যেভাবে ৫০টাকা হয়ে গেছিল

বঙ্গবন্ধুর বকশিস দেওয়া ১০০টাকা যেভাবে ৫০টাকা হয়ে গেছিল

বকশিসের

তামীম হুসাইন শাওন: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দেয়া বকশিসের ১০০টাকা শিঁড়ি দিয়ে নামতে নামতে ৫০টাকায় পরিনত হয়ে ছিল। তৎকালিন মানুষের মুখে মুখে ছিল ঘটনাটি।

অনেকে তাঁকে ঘৃণা করলেও, তার জন্য মানুষের ভালোবাসারও কমতি ছিল না।

এক গ্রাম্য লোকের সাক্ষাতের ঘটনা:

মহান স্বাধীতা যুদ্ধের কিছুদিন পরের ঘটনা। সাল বা দিনক্ষণ তেমন কারোরই জানা নেই। বঙ্গবন্ধু শেষ মুজিবুর রহমান ঢাকার বাস ভবনে নেতাকর্মীদের সাথে মিটিং করছিলেন। এমন সময় তাঁর গ্রামের বাড়ি গোপালগঞ্জ থেকে এক ব্যক্তি দেখা করতে আসেন।

ভালোবেসে লোকটি শেখ মুজিবুর রহমানের জন্য গ্রামের সতেজ সবজি নিয়ে এসেছিল। ইচ্ছে ছিল বঙ্গবন্ধুর সাথে দেখা করার। সমান্য উপহারটুকু নিজ হতে বঙ্গবন্ধুকে দিবেন।

লোকটিকে দেখে এক ব্যক্তি শেখ মুজিবুর রহমানের কাছে গিয়ে তার কথা বললেন। তিনি মিটিং ছেড়ে আসতে না পারায় সে ব্যক্তির কাছে গ্রামের লোকটির জন্য ১০০টাকা বকশিস পাঠিয়ে দিলেন।

তৎকালিন সময়ে ১০০টাকার অনেক মূল্য ছিল। বঙ্গবন্ধু যাকে দিয়ে টাকাটা পাঠিয়ে ছিল সে ভাবলো ১০০টাকা দিয়ে দিবো এই গ্রামের লোককে। তারচাইতে বরং ৫০টাকা রেখে দিই।

ফিরে এসে গ্রাম থেকে আসা লোকটিকে বললেন, স্যার (শেখ মুজিবুর রহমান) এখন মিটিংএ আছেন। তাই এখন দেখা করতে পারবে না। তোমাকে ৫০টাকা বকশিস দিয়েছেন।

লোকটি বারবার বলছিল, “আমি বকশিসের জন্য আসিনি। আমি উনার সাথে একটু দেখা করেই চলে যাবো।” কিন্তু কিছুতেই তাকে বঙ্গবন্ধুর সাথে দেখা করতে দেওয়া হলো না।

কিছুক্ষণ পরে লোকটি আবার এলো। এবার সে কাউকে না বলে সরাসরি শেখ মুজিবুর রহমানের কাছে চলে গেলো। গিয়ে বলল, স্যার ৫০টাকা বকশিসের চাইতে আপনার সাথে সাক্ষাৎ করা আমার কাছে বড় পাওয়া।

শেখ মুজিবুর রহমান ৫০ টাকা হাতে নিয়ে অবাক হয়ে তাকিয়ে রইলেন। আর বললেন, ১০০ টাকা শিঁড়ি দিয়ে নামতে নামতে ৫০ টাকা হয়ে গেলো? (লোক মুখে ভেসে আসা গল্প)

স্বাধীনতার অনেকগুলো বছর পেরিয়েছে। উন্নতি হয়েছে অনেক। চোর তখনও ছিল, এখনও রয়ে গেছে।

সম্পাদক – সমকালীন২৪.কম

সংবাদটি শেয়ার করে অন্যদের জানার সুযোগ করে দিন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2019-2020.somokalin24.com
Desing & Developed BY NewsRush